চলতি মাসেই দেখা মিলবে শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের

চলতি মাসেই দেখা মিলবে শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের


চলতি মাসের ২৭ তারিখ ভারতের আকাশে দেখা মিলবে এক বিরল দৃশ্যের। এদিনই দেখা যাবে শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। শুধু তাই নয় ওইদিন চাঁদের রঙ থাকবে লালচে। ‌যাকে বলা হয় ব্লাড মুন।২৭ জুলাই ভারতের স্থানীয় সময় রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে আংশিক চন্দ্রগ্রহণ শুরু হবে। ক্রমশ তা পূর্ণগ্রাসে পরিণত হবে রাত ১টার সময়। কলকাতা বিড়লা তারামন্ডলের অধিকর্তা দেবীপ্রসাদ দুয়ারি জানিয়েছেন, পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ হবে ১ ঘণ্টা ৪৩ মিনিট ধরে। এছাড়াও আংশিক গ্রহণ স্থায়ী হবে আরও এক ঘণ্টা। ভোর ৩টে ৪৯ মিনিট প‌র্যন্ত চলবে চন্দ্রগ্রহণ। 
কোন কোন জায়গা থেকে তা দেখা যাবে?‌ জানা গিয়েছে, এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা ‌যাবে ভারত, মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশিয়া, দক্ষিণ আমেরিকা এবং আফ্রিকা থেকে। ভারতের সব জায়গা থেকে এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা ‌যাবে। চাঁদ থেকে পৃথিবীর দূরত্ব ওইদিন সর্বাধিক হবে। ফলে চাঁদের আকার হবে অনেক ছোট। ফলে পৃথিবীর ছায়া বহুক্ষণ ধরে পড়বে চাঁদের ওপরে। ফলে চন্দ্রগ্রহণ দীর্ঘতম হবে। আগে পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ হয়েছিল চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি। গ্রহণ স্থায়ী হয়েছিল ১ ঘণ্টা ১৬ মিনিট। পরবর্তী পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ হবে ২০১৯ সালের ২১ জানুয়ারি।
কানহাইয়াদের জরিমানা বহাল, উমরের বহিষ্কারও

কানহাইয়াদের জরিমানা বহাল, উমরের বহিষ্কারও

দিল্লি : উমর খালিদের বহিষ্কার ও কানহাইয়া কুমারদের আর্থিক জরিমানার সিদ্ধান্ত বহাল রাখল জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি। ২০১৬–‌এ‌র ৯ ফেব্রুয়ারি‌র ঘটনার জন্য এঁদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের মামলা রুজু হয়েছিল। তার পাশাপাশি জেএনইউ–‌‌এর একটি প্যানেল উমর ও কানহাইয়া–‌সহ বেশ কিছু ছাত্রের বিরুদ্ধে বহিষ্কার বা জরিমানার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। দিল্লি হাইকোর্টের নির্দেশে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য বিষয়টি পাঠানো হয়েছিল জেএনইউ–‌‌এর ৫ সদস্যের উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটিতে। 
আজ কমিটি পুরনো সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছে। তবে, জেএনইউ সূত্রের খবর, প্রাতিষ্ঠানিক শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় উমর খালিদ ও কানহাইয়াদের শাস্তি যা ছিল, তাই রাখা হয়েছে। তবে, অন্য কয়েকজন ছাত্রছাত্রীর আর্থিক জরিমানার পরিমাণ কিছুটা কমানো হয়েছে। এদিনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবারও আদালতে যাওয়ার কথা ভাবছেন অভিযুক্ত ছাত্রছাত্রীরা। আইসা নেত্রী, জেএনইউ ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভানেত্রী সুচেতা দে ‘‌আজকাল’‌কে বললেন, ‘‌উচ্চ পর্যায়ের কমিটির নামে ২০১৯–‌‌এর আগে আবারও জেএনইউ নিয়ে নোংরা রাজনীতি করতে চাইছে বিজেপি। নির্বাচনের গিমিক। কয়েকটি বিজেপি–‌‌র মদতপুষ্ট সংবাদমাধ্যমকে ব্যবহার ‌করে জেএনইউ–‌‌এর ছাত্র রাজনীতির কোমর ভেঙে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে। মিথ্যা অভিযোগে ছাত্রদের বহিষ্কার ও আর্থিক জরিমানা তার সূত্রপাত। তবে, বামপন্থী ছাত্রছাত্রীরা এতে ভয় পাবেন না। 
এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবারও আদালতের দ্বারস্থ হবেন ছাত্রছাত্রীরা।’‌ সুচেতা আরও বলেন, ‘‌এই জরিমানা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কিছু প্রমাণ করার ষড়যন্ত্র। মেকি ভিডিও–‌‌র কথা সবাই জানেন। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই জেএনইউ–কে ‘‌টার্গেট’‌ করা হয়েছে। এতে লিপ্ত হয়েছেন খোদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর। তিনি সঙ্ঘের ঘনিষ্ঠ হিসেবেই ‌পরিচিত।’‌ এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রীর বক্তব্য জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘আদালতের নির্দেশ মেনেই কাজ করেছেন জেএনইউ কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে বেশি কিছু বলতে চাই না।’‌ দেশদ্রোহী স্লোগান ও জেএনইউ–‌‌এর শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ২০১৬ সালে জেএনইউ–‌‌এর এক প্যানেল উমর খালিদকে বহিষ্কার এবং তৎকালীন ছাত্র সংসদের সভাপতি কানহাইয়া কুমারের ১০ হাজার টাকা জরিমানার সুপারিশ করে। একইসঙ্গে অনির্বাণ ভট্টাচার্য–‌‌সহ ১৪ জন ছাত্রছাত্রীর আর্থিক জরিমানার সুপারিশ করেছিল সেই প্যানেল। ওই কমিটির সিদ্ধান্তকে জেএনইউ ছাত্র সংসদ তো বটেই, শিক্ষক সংগঠনও খারিজ করে দিয়েছিল। সেই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে গিয়েছিলেন অভিযুক্ত ছাত্ররা। 
হাইকোর্ট জেএনইউ–‌‌কে বিষয়টি পুনর্বিবেচনার জন্য উচপর্যায়ের তদন্ত কমিটি গড়ার নির্দেশ দিয়েছিল। ছাত্রদের বিরুদ্ধে মূলত অভিযোগ ছিল, তাঁরা সংসদ হামলায় দোষী সাব্যস্ত আফজল গুরুর ফাঁসির বর্ষপূর্তিতে (‌৯ ফেব্রুয়ারি)‌ জেএনইউ চত্বরে একটি কর্মসূচি পালন করেছিলেন ও সেখানে ‘‌দেশবিরোধী স্লোগান’‌ দিয়েছিলেন। বিতর্কিত কর্মসূচির জেরে ‘‌দেশদ্রোহিতা’‌র অভিযোগে গ্রেপ্তার করে জেলে ঢোকানো হয়েছিল উমর খালিদ, কানহাইয়া কুমার ও অনির্বাণ ভট্টাচার্যদের। পরে তাঁরা জামিনে মুক্তি পান। ২৩ দিন জেলবন্দি থাকার পর হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছিলেন কানহাইয়া কুমার। তারপর সেশন কোর্টও তাঁর জামিন মঞ্জুর করে। তারপর থেকে এই মামলা মোটামুটি ধামাচাপা ছিল। দিল্লি পুলিসের পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনও চার্জশিট দাখিল করা হয়নি। মামলাটি দিল্লি পুলিসের বিশেষ বিভাগের কাছে রয়েছে। এখনও দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য আদালতের অনুমতি নিতে হয় কানহাইয়াকে।‌‌
শুরুতেই শেষ জাপানি রকেট

শুরুতেই শেষ জাপানি রকেট


ওয়েব সংবাদ :‌ ওড়ার পরমুহূর্তেই পপাত ধরণীতলে রকেট। শনিবার স্থানীয় সময় ভোর ৫.‌৩০ মিনিটে এমনই দৃশ্য দেখল জাপানের হোক্কাইডো দ্বীপের তাইকি লঞ্চিং সাইট। জাপানের জনপ্রিয় ইন্টারনেট সার্ভিস প্রভাইডার ‘‌লাইভডোর’–এর মালিক তাকাফুমি হোরি ‌প্রতিষ্ঠিত ইনস্টেলার টেকনোলজি মহাকাশে পাঠানোর জন্য দেশের প্রথম বেসরকারি স্বয়ংক্রিয় রকেট তৈরি করেছিল। মোমো–২ নামে ৩৩ ফুট উঁচু ওই রকেট এদিন স্থানীয় সময় ভোরে তাইকিং লঞ্চিং প্যাড থেকে ওড়ার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই লঞ্চিং প্যাডেরই পাশে উল্টে পড়ে। পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই রকেটে বিস্ফোরণ হয়ে আগুন ধরে যায়। তবে দুর্ঘটনায় কেউ হতাহত হননি। ওই রকেটে ১০০ কিলোমিটার উঁচুতে নজরদারি চালানোর যন্ত্রপাতি পাঠানোর কথা ছিল। এই ঘটনায় মহাকাশে বেসরকারি রকেট পাঠানোর জাপানের পরিকল্পনা ফের ধাক্কা খেল। কারণ, গত বছরের জুলাই মাসেও এভাবেই ওড়ার কয়েক মুহূর্ত পরেই একটি রকেটের উপর থেকে সব নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন ইঞ্জিনিয়াররা। তারপরই সেটি ভেঙে পড়ে। সরকারি সংস্থা জাপান এরোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি অবশ্য এব্যাপারে কোনও প্রতিক্রিয়া দেয়নি। তবে এই ঘটনায় একটুও চিন্তিত নয় তাকাফুমি হোরির কোম্পানি ইনস্টেলার টেকনোলজি। তারা ফের নতুন উদ্যোমে রকেট তৈরি শুরু করবে বলে জানিয়েছে। ১৯৯০–২০০০–এর দশকে তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে যে বিপ্লব ঘটেছে জাপানে, তার অনেকাংশে কাণ্ডারি ছিলেন তাকাফুমি হোরি। পরে দুর্নীতির দায়ে দু’‌বছর জেলও খাটেন তিনি। মুক্তি পেয়ে ২০১৩ সালে ইনস্টেলার টেকনোলজি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।
‌বেতন বাড়ল ব্রিটেনের রানীর : জানেন কত মাইনে পাবেন তিনি?‌

‌বেতন বাড়ল ব্রিটেনের রানীর : জানেন কত মাইনে পাবেন তিনি?‌


ওয়েব সংবাদ :‌ ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে শুরু হবে বাকিংহাম প্যালেসের মেরামতির কাজ। খরচ হবে কম করে ৩৬৯ মিলিয়ন পাউন্ড। এর মধ্যেই আবার বৃদ্ধি পেল রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের বেতন। আগের বছরের তুলনায় ৯১ বছরের রানীর জন্য বরাদ্দ অর্থ বাড়ানো হয়েছে ১৩ শতাংশ। এর আগে রানীর খরচের জন্য বরাদ্দ হয়েছিল ৪১.‌৯ মিলিয়ন পাউন্ড। সেটাই বাড়িয়ে করা হয়েছে ৪৭.‌৪ মিলিয়ন পাউন্ড। বাকিংহাম প্যালেসের মেরামতির জন্য প্রাথমিক যে কাজ হয়েছে তার পিছনে ইতিমধ্যে বরাদ্দ অর্থের থেকে ৪ মিলিয়নেরও বেশি অর্থ খরচ হয়েছে। এছাড়া কর্মচারীদের মাইনে দেওয়ার জন্য খরচ হয়েছে ২১.‌৪ মিলিয়ন পাউন্ড অর্থ। রানী এলিজাবেথের খরচের টাকা আসে ব্রিটেনের করদাতাদের কাছ থেকে। তাই অনেকেই বরাদ্দ বৃদ্ধি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বিরোধীরাও সরব হয়েছেন।
রাশিয়ার মাটিতে ফরাসি বিপ্লব, বিশ্বজয়ের স্বপ্ন শেষ মেসির

রাশিয়ার মাটিতে ফরাসি বিপ্লব, বিশ্বজয়ের স্বপ্ন শেষ মেসির


কাজান : তাঁর বাঁ-পায়ের জাদু মুগ্ধ করেছে গোটা ফুটবল বিশ্বকে৷ তাঁর শিল্প দেখে মাথা নত করেছেন তাঁর সমালোচকরাও৷ বোধহয় এমন কোনও ট্রফিই নেই যা তিনি পাননি৷ কিন্তু প্রতি বছর বিশ্বকাপ শুরু হতেই সবাই প্রশ্ন তুলতে থাকেন পারবেন কি লিওনেল মেসি দেশকে বিশ্বকাপ জেতাতে? কারণ তাহলেই তিনি বসে পড়বেন মারাদোনার পাশে৷ ওই লোকটিও যে একার কাঁধে দেশকে বিশ্বকাপ এনে দিয়েছেন৷ব্রাজিলে একটুর জন্য হয়নি৷ রাশিয়াতে ফুটবল বিশ্বকাপের আগেও তাই দেখা দিয়েছিল সেই প্রশ্ন৷ কিন্তু না তিনি পারলেন না৷ শেষ ১৬-তেই থামতে হল আর্জেন্টিনাকে৷ আবার স্বপ্নভঙ্গ হল লিওনেল মেসির৷ ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে হারল নীল-সাদা জার্সিধারীরা৷ আর মেসির জন্য তৈরি মঞ্চে নায়ক বনে গেলেন কিলিয়ান এমবাপ্পে৷ জোড়া গোল করে দলের জয়ের অন্যতম কারিগর হয়ে রইলেন ১৯ বছর বয়সি এই খেলোয়াড়৷ পরিসংখ্যান বলছে বিশ্বকাপে কোনওদিনও আর্জেন্টিনাকে হারাতে পারেনি ফ্রান্স৷ সেই পরিসংখ্যানকে বদলে দিতেই যেন এদিন মাঠে নেমেছিলেন এমবাপ্পে-গ্রিয়েজম্যান-জিঁরুরা৷ শুরু থেকে আক্রমণের ঝড় তোলেন তাঁরা৷ অপরদিকে, অতিকষ্টে গ্রুপ পর্বের বাধা টপকে আর্জেন্টিনা আর এদিনের আর্জেন্টিনার মধ্যে যেন কিছুটা হলেও পার্থক্য ছিল৷ তবে শুরুতেই গোল পেয়ে যায় ফ্রান্স৷ ম্যাচের বয়স তখন ১৫ মিনিটও হয়নি৷ বক্সের মধ্যে এমবাপ্পেকে ফাউল করেছিলেন নাইজেরিয়া ম্যাচের নায়ক মার্কো রোজো৷ 
এরপরই পেনাল্টির নির্দেশ দেন রেফারি৷ যা থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন গ্রিয়েজম্যান৷ এরপরই ম্যাচে জাঁকিয়ে বসতে শুরু করে ফ্রান্স৷ তবে বিরতির ঠিক দু’মিনিট আগে এভার বানেগার পাস থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান ডি মারিয়া৷ ১-১ অবস্থাতেই শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা৷ বিরতির পরই খেলা আরও গতিলাভ করে৷ এই অর্ধে মোট পাঁচ গোল হয়৷ তার মধ্যে তিনটি ফ্রান্সের, দু’টি আর্জেন্টিনার৷ তবে শুরুটা করেছিলেন মেসিরা৷ ৪৮ মিনিটে মেসির শট মের্কাডোর পায়ে লেগে দিক পরিবর্তন করে গোলে ঢুকে যায়৷ যদিও ১০ মিনিটের মধ্যেই গোল শোধ করে ফ্রান্স৷ পার্ভাডের দুরন্ত শট রুখতে ব্যর্থ হন আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক৷ এরপর মাঠে দেখা গেল এমবাপ্পে ম্যাজিক৷ ৬৪ এবং ৬৮ মিনিটে জোড়া গোল করেন পিএসজি-র এই তারকা খেলোয়াড়৷ পেলের পর দ্বিতীয় টিনএজ খেলোয়াড় হিসেবে নক আউটে গোল করলেন৷ তবে অনায়াসে হ্যাটট্রিকটিও সেরে ফেলতে পারতেন৷ কিন্তু নিজের ভুলে পারলেন না৷ এরপর অতিরিক্ত সময়ে একটি গোল শোধ করলেও আর্জেন্টিনার কাপ জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে তা যথেষ্ট ছিল না৷ আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড আগুয়েরো যে সময় জ্বলে উঠলেন, তখন অনেক দেরি হয়ে গেছে৷ তবে অন্তিম লগ্নে নীল-সাদা জার্সিধারীরা গোল করার কয়েকটি সুযোগ কিন্তু পেয়েছিলেন৷ কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ সময়ে লিও মেসি অ্যান্ড কোংয়ের ব্যর্থতায় শেষ হাসি হাসল ফ্রান্স৷ কোয়ার্টার ফাইনালে পর্তুগাল-উরুগুয়ে ম্যাচের বিজয়ীর সঙ্গে খেলবেন গ্রিয়েজম্যানরা৷
ফের দাম বাড়ল রান্নার গ্যাসের

ফের দাম বাড়ল রান্নার গ্যাসের


ওৱেব সংবাদ :‌ মধ্যবিত্তের চিন্তা বাড়িয়ে ফের দাম বাড়ল ভর্তুকিযুক্ত রান্নার গ্যাসের। সিলিন্ডার প্রতি ২ টাকা ৭১ পয়সা বেড়েছে ভর্তুকিযুক্ত গ্যাসের দাম। শনিবার মধ্যরাত থেকেই কার্যকর হয়েছে নতুন দাম। এই নিয়ে ভর্তুকিযুক্ত রান্নার গ্যাসের দাম বেড়ে হল ৪৯৩.‌৫৫ টাকা। ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে বিবৃতি জারি করে নতুন দামের কথা ঘোষণা করা হয়। অন্যদিকে ভর্তুকিহীন রান্নার গ্যাসের দাম সিলিন্ডার প্রতি ৫৫.‌৫০ টাকা বেড়েছে। দেশের অধিকাংশ মধ্যবিত্ত পরিবারই ভর্তুকিযুক্ত রান্নার গ্যাসের উপর নির্ভরশীল। একদিকে যখন মোদি সরকার ঘরে ঘরে রান্নার গ্যাস পৌঁছে দেওয়ার কথা বলছেন, তখন ক্রমাগত এই দাম বৃদ্ধিতে তা ক্রমশ সাধারণের আয়ত্তের বাইরে চলে যাচ্ছে। মধ্যবিত্তদের পক্ষেই রান্নার গ্যাস ব্যবহার করা নিয়ে সংকট তৈরি হয়েছে। সেখানে একটি দরিদ্র পরিবার প্রতি মাসে ৫০০ টাকা খরচ করে কীভাবে রান্নার গ্যাস কিনবেন। এই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধীরা।
আগামী মাসেই পৃথিবীর সব চেয়ে কাছে আসছে মঙ্গল

আগামী মাসেই পৃথিবীর সব চেয়ে কাছে আসছে মঙ্গল


ওয়েব সংবাদ :‌ আগামী মাসের ২৭ তারিখ পৃথিবীর সব চেয়ে কাছে আসবে মঙ্গল। ২০০৩ সালের ২৭ আগস্টের পর এটাই প্রথমবার, যখন মঙ্গল পৃথিবীর সব থেকে নিকটতম বিন্দুতে আসবে। এমনটাই জানিয়েছে নাসা। নাসা আরও বলেছে, জুলাইয়ের ২৭–৩১ তারিখ পর্যন্ত মঙ্গল সম্পূর্ণ দৃশ্যমান থাকবে কারণ, সূর্যের পুরো আলোই পড়বে মঙ্গলের উপর। আর পৃথিবী থেকে তা পরিষ্কার দেখা যাবে। ৩১ জুলাই মঙ্গল থেকে পৃথিবীর দূরত্ব থাকবে ৩৫.‌৮ মিলিয়ন মাইল। মঙ্গল এবং সূর্যের অবস্থান মহাকাশে ঠিক বিপরীত স্থানে রয়েছে। তাই সূর্যের পুরো পাবে মঙ্গল ওই সময়টায়। প্রতি ১৫ থেকে ১৭ বছর পর এই ভাবে অবস্থান করে মঙ্গল গ্রহ এবং সূর্য। 
এই সময়টা আসলে মঙ্গল গ্রহের সূর্যকে প্রদক্ষিণের সেই সময়, যখন মঙ্গল সূর্যের সব থেকে কাছে আসছে। সেজন্যই এতটা আলোকিত থাকবে লাল গ্রহ। এই সময়টাকে বলে মঙ্গলের অপোজিশন।আর যেহেতু মঙ্গল শুক্রের মতোই বাকি গ্রহের থেকে পৃথিবীর অনেকটাই কাছের গ্রহের অন্যতম, সেহেতু ওই দিন পৃথিবী থেকে অনেকটাই উজ্জ্বল দেখাবে মঙ্গলকে। ৬০,০০০ বছর পর ২০০৩ সালে যখন মঙ্গল পৃথিবীর অত কাছে এসেছিল।
 নাসা বলেছে, যেহেতু পৃথিবী মঙ্গলের থেকে সূর্যের বেশি কাছে, সেহেতু তার প্রদক্ষিণের সময়টাও বেশি দ্রুত হয়। তাই কখনও দুটি গ্রহই পরস্পরের থেকে অনেক দূরে চলে যায়। আবার কখনও পৃথিবী তার প্রতিবেশী গ্রহের খুব কাছে চলে আসে। ২৭ তারিখ সেরকম অবস্থানেই থাকবে দুটি গ্রহ। তাহলে আর দেরি নয়, মহাকাশপ্রেমীরা তৈরি হন। টেলিস্কোপ, যন্ত্রপাতি যাঁর যা আছে, আর কেউ যদি যান জ্যোতির্বিবিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রগুলির সঙ্গেও যোগাযোগ করতে পারেন। আগামী মাসে মহাকাশের এই বিরল দৃশ্য দেখতে। নাহলে হয়ত আবার ১৫ বছর অপেক্ষা করতে হবে আমাদের পৃথিবীর বুক থেকে লাল গ্রহকে সব চেয়ে উজ্জ্বল দেখার সুযোগের মওকা থেকে।